বুদ্ধদেব গুহ শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে

এ বছরের এপ্রিলে কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার পর থেকেই কোভিড-পরবর্তী নানা সমস্যায় ভুগছিলেন পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় লেখক বুদ্ধদেব গুহ। এবার শ্বাসকষ্টসহ একাধিক সমস্যা নিয়ে ফের তাঁকে হাসপাতালে নেয়া হলো।

কলকাতার সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, ৩ দিন ধরে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৮৫ বছর বয়সী লেখক। গতকাল মঙ্গলবার রক্তচাপ কমে যাওয়ায় শারীরিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে তাকে ওই হাসপাতালের সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়।

বুদ্ধদেবের কোভিড পরীক্ষা করা হয়েছে। তবে এবার আর নতুন করে কোভিড সংক্রমণ মেলেনি।

বুদ্ধদেবের দৃষ্টিশক্তি, মূত্রনালী, লিভার ও কিডনিতে সামান্য সমস্যা রয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। তবে মূত্রনালীর সংক্রমণই এখন মূল সমস্যা বলছেন চিকিৎসকেরা।

তার শরীরে অ্যামোনিয়ার মাত্রাও বেশি ধরা পড়েছে। তাকে প্রতি মিনিটে ২ লিটার করে অক্সিজেন দেয়া হচ্ছে। তাকে গ্যাস্ট্রোএনট্রোলজিস্ট, পালমোনোলজিস্ট, নেফ্রোলজিস্ট ও কার্ডিওলজিস্টদের পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

কোভিড আক্রান্ত-কালীন হোটেলে নিভৃতবাসে থাকার পর তাকে বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ৩৩ দিনের লড়াইয়ের পর করোনামুক্ত হয়ে বাড়ি ফেরেন বুদ্ধদেব ।

বুদ্ধদেব গুহ ১৯৩৬ সালের ২৯ জুন পশ্চিমবঙ্গে জন্মগ্রহণ করেন । বিচিত্র অভিজ্ঞতায় ভরপুর তাঁর জীবন। ইংল্যান্ড, ইউরোপের প্রায় সব দেশ, কানাডা, আমেরিকা, হাওয়াই, জাপান, থাইল্যান্ড ও পূর্ব আফ্রিকায় পড়েছে তাঁর পদরেখা। ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় বন-জঙ্গল, পশুপাখি ও বনের মানুষের সঙ্গেও তার সুদীর্ঘকালের নিবিড় ও অন্তরঙ্গতা।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজে পড়াশুনা করেন তিনি। পেশাগত জীবন শুরু হয় চাটার্ড অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে, এ পেশায় তিনি সুনাম অর্জন করেন। দিল্লির কেন্দ্রীয় রাজস্ব বোর্ড তাঁকে পশ্চিমবঙ্গের আয়কর বিভাগের উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্য নিযুক্ত করেছিল। আকাশবাণী কলকাতা কেন্দ্রের অডিশন বোর্ডের সদস্য ছিলেন এবং কেন্দ্রীয় সরকারের ফিল্ম সেন্সর বোর্ডের সদস্যও ছিলেন তিনি। এক সময় বামফ্রন্ট আমলে বুদ্ধদেবকে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বনবিভাগের বন্যপ্রাণী উপদেষ্টা বোর্ড পশ্চিমবঙ্গ বিভাগের উপদেষ্টা বোর্ড এবং নন্দন উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্যও করা হয়েছিল।

‘জঙ্গলমহল’ তাঁর প্রথম প্রকাশিত বই। তারপর একে একে অনেক উপন্যাস ও গল্পগ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। তিনি লেখক হিসেবে খুবই অল্প সময়ে খ্যাতি পেয়েছেন। তার বিতর্কিত উপন্যাস ‘মাধুকরী’ দীর্ঘদিন ধরে বেস্টসেলার ছিল। ছোটদের জন্য‘ঋজুদার সঙ্গে জঙ্গলে’ বেশ সুনাম অর্জন করে। ঋজুদা তার সৃষ্ট একটি জনপ্রিয় গোয়েন্দা চরিত্র। আনন্দ পুরস্কার পেয়েছেন ১৯৭৭ সালে। প্রখ্যাত রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী ঋতু গুহ তার স্ত্রী। টিভি ও চলচ্চিত্রে রূপায়িত হয়েছে তার একাধিক গল্প-উপন্যাস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!